গুলজারের কিছু শায়েরী

সেই প্রেমও তোমার, ঘৃণাও তোমার
বলো কার কাছে চাইবো ভালবাসার বিচার
এই শহরও তোমার এই আদালতও তোমার

এই মাটিকে নিশ্চয়ই পাগলের মতো বেসেছে ভালো বৃষ্টির ফোঁটা
সামান্য প্রেমে কেউ পড়ে না এমন ঝরে এত নিচে

তুমি যাওয়ার পরেও প্রতিটা মুহূর্ত আমি
কাটিয়ে চলেছি তোমারই সাথে

তোমায় দুঃখের সাগর থেকে টেনে বের করবে কে
আমিও চলে গেলে তোমায় দেখে রাখবে কে?

কারো কারো দিন কাটে এমনই, যে
মনে হয়, কারো অনুগ্রহের বোঝা কমাচ্ছে সে

তোমায় ভাবতে বসে ভুলে যাই সারা বিশ্ব
তোমার পথ চেয়ে চেয়ে হয়েছি আমি নিঃস্ব

অন্য রকম কিছু করতে হলে
ভিড়ের বাইরে চলে আসো,
ভিড় কিছু সাহস যোগায় বটে
তবে কেড়ে নেয় ব্যাক্তি পরিচয়

আমার কোনো অন্যায় যদি থাকে তা প্রমান করো
যদি বলো আমি খারাপ, তা বল কেনো খারাপ
কত ভালবাসি তোমায় তাতো তুমিই জানো
তুমি বলো আমি বেঈমান … তা তুমি যে ঈমানদার তাতো প্রমান করো

তোমার চোখে খুশীর ঝিলিক, ভালো লাগে না
তোমায় কাঁদাতে যা লাগে সব, পাঠানো হয়েছে

“দোষতো সব তার একারই নয়, হে বন্ধু, বোঝো,
অনেকেই ভালবাসে তাকে, কাকে সে কথা দেবে!“

আমি নিজে ঘুমোবার আগে, আমার বাসনাগুলোকে ঘুম পাড়াই
তবুও সকালে ঘুম ভেঙ্গে দেখি ওরা সব আগেই জেগে উঠেছে

আরশী দেখে তবেই স্বস্তি পেলাম
এ বাড়িতে আমার চেনা কেউ আছে

সময় থাকে না কোথাও থেমে দু দন্ড
এতো দেখি বেশ মানুষেরই স্বভাব

ভালবাসা শেখালে তুমি,
ঘৃণা করাও শেখালে তুমি
তোমাকে ভালও বাসি ঘৃণার করি

মাটির মতো এত বড় সখ্য আর পাবে কোথায়
সামান্য বীজ ছড়ালে দিয়ে দেয় গোটা গাছ

গ্লাসের ওপরে চাঁদ, গ্লাসের ভেতরেও চাঁদ প্রপতিত
এখানে আমরাই তিন জন, চাঁদ, গ্লাস আর একাকিত্ব

কেউ যদি কথাটা শোনে তো বলি
জীবন একাকি কাটনো ঢের ভালো
স্বার্থপর বন্ধু বড়ই খারাপ জিনিস

চোখ দুটো ভিজে ভিজে সাঝ থেকে
আজ আবারো তুমি কোথাও নেই দেখে

Please Post Your Comments & Reviews

Your email address will not be published. Required fields are marked *